অপহৃতা কন্যা সুমাইয়া জান্নাত (১৯) কে ফিরে পেতে পিতা ইব্রাহীম পাটোয়ারীর আকুতি

0
8

বিশেষ প্রতিবেদক:

ইব্রাহীম পাটোয়ারী থাকতেন নাঃগঞ্জ সদরের ২৩ আল্লামা ইকবাল রোডের ভাড়া বাসায় তার পরিবার পরিজন নিয়ে। কিন্তু নিজের কন্যা সুমাইয়া জান্নাত কে গত ১০/০৬/২০ইং তারিখে গ্রামের বাড়ী লক্ষীপুর জেলার চন্দ্রগঞ্জ থানার উত্তর দূর্গাপুর (ভোলা গাজী পাটোয়ারী বাড়ী) নিয়ে এলাকার জনৈক নুর আলমের সাথে বিয়ে দেন। বিয়ের কয়েকদিন পর জামাই মেয়ে নাঃগঞ্জের ভাড়া বাসায় বেড়াতে আসে। গত ১৫ জুন পূর্ব পরিচিত অপ্রাপ্ত বয়স্ক বখাটে কিশোর আহসান হাবীব ওরফে সৌরভ (১৭) ফুসলিয়ে নাঃগঞ্জ বিআইডাব্লিউটিএ ঘাট এলাকায় তাদের বাসায় ডেকে নিয়ে যায় নববিবাহিতা সুমাইয়া জান্নাত (১৯) কে। কিন্তু অদ্যাবধি মেয়ের কোন খোঁজ না পেয়ে পিতা ইব্রাহীম পাটোয়ারী একেবারে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন। বহু জায়গায় খোঁজ করেছেন কিন্তু কোথাও তার সন্ধান পাননি। এদিকে বখাটে সৌরভের পিতা বিআইডাব্লিউটিএ এর অধীন এজাইল নামক জাহাজে মাষ্টার পদে চাকুরীরত আঃ হালিম ছুটি নিয়ে বাসায় তালা লাগিয়ে পলাতক রয়েছেন। এদিকে সুমাইয়া জান্নাতের পিতা ইব্রাহীম পাটোয়ারী ব্যাপক খোঁজাখুঁজির পর বিশ্বস্থ সূত্রে জানতে পেরেছেন ঢাকা মহানগরীর বাসাবো হক আবাসিক সোসাইটির ২নং গেটের ১নং বিল্ডিংয়ে সৌরভের বড় চাচা মোঃ শাহ আলমের বাসায় বন্দি আছে। এছাড়া কখনো কখনো লক্ষীপুরের একই এলাকায় ছেলের বোন নিশী ও মামা ফেরদৌস এবং আরেক মামা ফরহাদ এর হেফাজতে থাকছে। তাকে প্রায়ই স্থান বদল করাচ্ছে এ ব্যাপারে মাননীয় মহা পুলিশ পরিদর্শক বরাবর গত ২৫ জুন এস, এল ৭২৪ নং স্মারকে একটি আবেদন দাখিল করেছেন। নাঃগঞ্জ পুলিশ সুপার , লক্ষীপুর পুলিশ সুপার, নাঃগঞ্জ সদর থানা ও চন্দ্রগঞ্জ থানায় ও অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। পিতা ইব্রাহীম পাটোয়ারী তার কন্যাকে ফিরে পেতে আকুল আবেদন জানিয়েছেন। সুমাইয়া জান্নাতের মুক্তির বিনিময়ে মোটা অংকের টাকা ও দাবী করছে অপহরণকারীরা বলে ইব্রাহিম পাটোয়ারী এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে পুলিশের তেমন কোন সহযোগীতা না পেয়ে ইব্রাহিম পাটোয়ারী খুবই হতাশ। এ বিষয়ে নারায়নগঞ্জের একাধিক পত্রিকায় সুমাইয়া অপহরণে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। সুমাইয়ার বাবা দরদী প্রধানমন্ত্রীরও হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY