সবুজবাগ থানার কালি মন্দির এলাকায় পুলিশ পরিচয়ে জমি দখল ও ভয়ভীতির প্রতিবাদে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী/ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী/আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিকট আইনী সহায়তা চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

0
5

তারা নিউজ ডেস্ক :
মোসাঃ সালেহা আক্তার, স্বামী- মোঃ আশরাফুল খান লিটন, বাড়ী নং-১৮১ শাপলা কানন, থানা-সবুজবাগ, ঢাকা এই মর্মে আপনাদেরকে জানাইতেছি যে, নি¤œ তফসিল ভুক্ত সম্পত্তির প্রকৃত মালিক ছিলেন শুক্কুর মোহাম্মদ। শুক্কুর মোহাম্মদ ভোগদখলে নিয়ত থাকাকালে ঢাকা সিটি জরিপ আগত হইলে সিটি খতিয়ান নং-৩৮০৯, দাগ নং-১৩৭১ এ ০৬৬০ অযুতাংশ সম্পত্তি শুক্কু মোহাম্দ এর নামে শুদ্ধভাবে লিপিবদ্ধ হয়। শুক্কুর মোহাম্মদ গত ১৮/০২/২০০১ ইং তারিখে ৫৭০ নং সাব কবলা দলিল মূলে মোঃ আমির হোসেন এর নিকট সাব-কবলা বিক্রয় করে। অতঃপর ম্ঃো আমির হোসেন গত ০৪/০৬/২০১৮ইং তারিখে ২৮৪৩ নং সাব কাবলা দলিল মূলে আমার স্বামী মোঃ আশরাফুজ্জামান খান লিটন, দেবর আশরাফুল রহিম এর নিকট সাব-কবলা বিক্রয় করিয়া নিঃস্বত্ত¡বান হন। আমার স্বামী নামজারী খাজনা খারিজ ১৪২৬ সাল পর্যন্ত পরিশোধ করিয়া ভোগ দখল করিয়া আসিতে থাকাবস্থায় কতিপয় দুঃষ্কৃতিকারীগণ জোরপূর্বক দখল ও বাধা প্রদান করিলে প্রাণ নাশের হুমকি প্রদান করিয়া আসিতেছে। গত ৬/৫/২০১৯ইং তারিখে বিকাল ৫.০০ ঘটিকায়র সময় (১) ছাদেকুর রহমান, (২) মোঃ কবির হোসেন হাওলাদার, (৩) মাহাবুবু রহমান হাওলাদার, (৪) মোঃ জহিরুল ইসলাম, (৫) রতন দাস, (৬) মন্তশ দাস গণ ১৩/১৪ জন অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসী নিয়ে তফছিভুক্ত ভূমি জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা করায় আমার স্বামী বাদী হইয়া নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪/০৫/২০১৯ইং তারিখে পিটিশন মামলা নং-৬২/১৯ ফৌঃ মামলা দায়ের করিলে বিজ্ঞ আদালত নালিশি সম্পত্তিতে সবুজবাগ থানাকে স্থিতবস্থায় বজায় রাখার জন্য আদেশ প্রদান করে। উক্ত মামলা চলমানথাকা অবস্থায় পুনঃরায় গত ১৭/৫/২০১৯ইং তারিখে বিকার ৪.০০ ঘটিকায় সময় বিবাদীগণ আমার স্বামীর মালিকানাধীন সম্পত্তিতে জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা করে। তখন আমার স্বামী ও দেবরসহ পরিবারের লোকজন বাধা প্রদান করিলে বিবাদীরা আমাকে ও আামার পরিবারের প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে চলিয়া যায়। যাহা জিডি নং-৮৭৬ তাং-২১/০৫/২০১৯ইং
কালিমন্দির সংলগ্ন এলাকার ভূমিদস্যু, চাঁদাবাজ জন্টু দাস সুবজবাগ থানা পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করে। সে এলাকায় ইয়াবা ব্যবসায়ী বলে পরিচিত। থানা পুলিশের সাথে গভীর সক্ষ্যতার কারণে নানা অপরাধ করেও সে অতি দ্রæত পার পেয়ে যায়। পুলিশের সহযোগীতায় সে এলাকায় ইয়াবা ব্যবসা করছে। তার বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক অভিযোগ রয়েছে। তারপরও পুলিশ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। সন্ত্রাসী জন্টু ও সাদেকুর রাহমান এর নেতৃত্বে আমার জায়গায় চত্বরপাশে বাশের খুটি দারা ঘেরাও করতেছে। গত শুক্রবার বিকেলে আমাকে অবরুদ্ধ করে রাখে। আমার স্বামী এলাকায় যেতে পারছে না। প্রকাশ্যে আমার স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। আমি জিডি করতে গেলে বর্তমানে জিডিও গ্রহন করছে না এমতস্থায় আমি আমার নিরাপত্তা ও জমি উদ্ধার ও বাড়ী রক্ষার জন্য ডিএমপি কমিশনার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু কোন অভিযোগই আমলে নিচ্ছে না সবুজবাগ থানা পুলিশ। বার বার ফোন করার পরও সাহায্যের আবেদন করার পরও আমাকে কোন প্রকার আইনগত সহযোগিতা করছে না সবুজবাগ থানা।
বরং বিবাদীগণ এখন আরো বেপরোয়া হয়ে আমার জায়গায় বাশের খুটি দ্বারা বেড়া নির্মান করছে ও আমার সাইনবোর্ড ফেলে দিয়েছে ঘরের দরজা বেড়া ভেঙ্গে ফেলেছে । পাশে আমার আরেক ফ্লটের বাথরুম ও ঘরের দরজা ভেঙ্গে ফেলেছে। তারা আইন আদালতকে কোনো প্রকার তোয়াক্কাই করছে না ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৫ দ্বারা ভঙ্গ করছে।
প্রিয় সাংবাদিক ভাইয়েরা, আজ আমি আমার পরিবারকে নিয়ে দারুন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছি। যে কোন সময় দূর্র্বৃত্তরা আমার স্বামীকে বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে এবং আমার পরিবারের নিরাপত্তা জমি রক্ষার জন্য আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশের আইজি ডিএমপির কমিশনার মহোদয়সহ সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে আইনী সহায়তার কামনা করছি।

LEAVE A REPLY