সাংবাদিকদের মৃত্যুপুরী: তুরস্কের কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার ন্যায়বিচারের শেষ পরিণতি কোথায়?

0
129

বিশ^ায়নে মানুষতার পেশাগত উৎকর্ষ সাধনের ক্ষেত্রে প্রতিনিয়ত নবলব্ধ জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে অগ্রসরমান। কিন্তু কোনো কোনো পেশায় বিশ^ায়নে রাষ্ট্র, সরকার ও সুশাসন পরিচালনের ক্ষেত্রে ঘাটতির ব্যাপকতা এতো বেশি যেÑঐসব পেশায় বিশেষত সাংবাদিকতা পেশায় কর্মরত লোকজন শুধুমাত্র পেশাগত মৌলিক কর্তব্য ও দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হওয়ার পথে। কারণ বিশে^র দেশে দেশে রাজনৈতিক সরকার তাদের অনৈতিক রাজনৈতিক চর্চার মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ ও তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে নাগরিকদের বাক-ব্যক্তি-স্বাধীনতা প্রকাশের অধিকার ব্যাপকভাবে বাধাগ্রস্ত করছে। যদিও পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র পরিচালনার মূল দলিল সংবিধানেÑসাংবাদিকতা পেশার পেশাগত নিশ্চয়তা আইন দ্বারা স্বীকৃত রয়েছে। আর কখনো কখনো রাজনীতিবিদগণ নিছক তাদের স্বার্থে আইনের সংশোধন করে সাংবাদিকতা পেশার কার্যক্রমকে সরাসরি স্থগিতাদেশ দিয়ে রেখেছে। আর ঐ ধরণের আইনি স্থগিতাদেশ কোনোভাবেই জনগণের অধিকার সংরক্ষণ করেনা। এমনকি ব্যাপকভাবে ঐসব আইন-কানুন সাংবাদিকতা পেশার লোকজনের মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে।
আজ থেকে প্রায় ১৮৫ বছর আগে সাংবাদিকতা (ঔড়ঁৎহধষরংস) শব্দটির উৎপত্তি। আর শব্দটি ফ্রান্স ভাষা থেকে এসেছে। কিন্তু বাস্তবে সাংবাদিকতা বিশ^ায়নকে তথ্য ও তথ্যের প্রবাহকে গতিশীলতার ধাপে ধাপে মানুষকে অনেক বড় বড় সফলতা এনে দিয়েছে। এমনকি পৃথিবীর অন্যতম পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও সাংবাদিকতার এক অভিজাত অবস্থান হিসেবে গড়ে উঠেছে। যদিও বর্তমানে ট্রাম্প প্রশাসনে ঐতিহ্যবাহী এ অভিজাত অবস্থানে বেশ ঘাটতি পরিলক্ষিত হয়েছে। তবে সৌদিয়ান সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে যখন তুরস্কে সৌদি কনস্যুলেট অফিসে হত্যা করার পর তাঁর লাশকে তীব্রমাত্রার এসিড দিয়ে বিকৃত করেছেÑ আর এসব ঘটনা থেকেই বলার অপেক্ষা রাখেনা তুর্কি বীর কামাল পাশার দেশে বৈশি^ক সাংবাদিকতা নিশ্চিহ্ন করার মৃত্যুপুরী হয়ে দাঁড়িয়েছে। যেখানে প্রভাবশালী মুসলিম দেশগুলিও পর্যন্ত উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে ব্যাপক উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে। এমনকি ঐ হত্যাকান্ডের পরপরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইএ) জামাল খাশোগি হত্যাকা- সম্পর্কে সংগৃহিত তথ্য ও প্রতিবেদন হস্তগত করে। যদিও খাশোগি হত্যাকা- সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ফক্স নিউজকে এক সাক্ষাৎকারে বলেনÑএটি কষ্টের টেপ, এটি ভয়াবহ টেপ, এটি সহিংস ও খুবই আক্রোশপূর্ণ ও ভয়াবহ। অতঃপর বিগত ০৯-০১-২০১৯ তারিখে জামাল খাশোগি হত্যাকা- সম্পর্কে তথ্যাদি প্রকাশ করতে সিআইএর বিরুদ্ধে মামলা করতে বাধ্য হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক ভিত্তিক আইনি প্রতিষ্ঠান দ্য জাস্টিস ইনিশিয়াটিভ। আর এ প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী পরিচালক গোল্ড স্টোন বলেনÑ ফেডারেল সরকার যা জানে তা কৌসুলী ও বিচারকদের জানানোর মাধ্যমে শুধু যুক্তরাষ্ট্রে নয় বরং পৃথিবীর যেখানে তাদের এখতিয়ার আছে সেখান থেকে অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনা সম্ভব হবে। উক্ত মামলায় সিআইএ যদি খাশোগি হত্যাকা-ের তথ্যাদি প্রকাশ ও জানানোর পথ সুগম করে, তবে হয়তো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ঐ হত্যাকা-ের গ্লানি থেকে তাদের অবস্থান পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবে। এদিকে খাশোগি হত্যাকা-ের শততম দিনে স্মরণ উদযাপন অনুষ্ঠানে রিপাবলিকান সিনেটর মাইক ম্যাকল বলেনÑ সৌদি আরবের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্টের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এখন বড় বিপত্তি খাশোগি হত্যাকা-। এর পরিবর্তন আবশ্যক। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সিনেটের পররাষ্ট্র কমিটির চেয়ারম্যান ইলিয়ট অ্যানজেল বলেনÑ সৌদি আরবের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক নিয়ে একটি শুনানির আয়োজনের পরিকল্পনা করছেন তিনি। উক্ত স্মরণ অনুষ্ঠানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের ডেমোক্র্যাটদের স্পিকার ন্যান্সী পেলোসি বলেনÑঐ হত্যাকা-ে যদি বাণিজ্যিক সুবিধার কথা বিবেচনা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পদক্ষেপ নেয়, তবে আমাদের স্বীকার করতে যেকোনো নৃশংস ঘটনা নিয়ে কথা বলার নৈতিকতা আমরা হারিয়েছি।
তবে সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকা- সম্পর্কে ট্রাম্প প্রশাসনের অবস্থান যে যাই বলুক বিগত ০৭-০১-২০১৯ তে সিএনবিসি টেলিভিশনকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেই ও বলেনÑখাশোগি হত্যাকা-ের ঘটনায় আমরা বিশ^কে খুব পরিষ্কার বার্তা দিয়েছি। এটা ছিল একটা ঘৃন্য কাজ, এটা অগ্রহণযোগ্য। এই হত্যাকা-ের শাস্তি অন্যদেশগুলিকেও পথ দেখাবে। অতএব, খাশোগি হত্যার জন্য সৌদি আরবকে শাস্তি পেতে হবে। উল্লেখ্য যে, তুরস্কের বর্তমান রাষ্ট্র ব্যবস্থায় কোনোভাবেই গণতন্ত্র, বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা যোজন যোজন দূরে। এমনকি সেখানে শতশত সাংবাদিক কারাগারে অন্তরীণ অথবা দেশ ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। এ পরিস্থিতি যে কত ভয়ানকতার সর্বশেষ প্রমাণ তুরস্কের কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকা-। অতঃপর তার মরদেহ টুকরো টুকরো করে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার মতো নজিরবিহীন ভয়ানক কা-। অধিকন্তু পানামা পেপারস প্রকাশের পূর্বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক এইচ ওবামা বলেনÑআইনগতভাবে পানামা পেপারস খুব বেশি প্রমাণ সাপেক্ষ্য। কিন্তু সত্যিকার অর্থে এটি সমস্যা সৃষ্টি করবে। সেদিনকার পানামা পেপারস সংক্রান্ত দুর্নীতির কেলেংকারিতে সাংবাদিকতার অহংকার আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট ডাফনি কারুয়াণা গ্যালিজিয়াকে তার বাড়ির সামনে এক কৃত্রিম গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে হত্যা করা হয়। আর সেই হত্যাকা-ের বিচার অদ্যাবধি হয়নি। অতপর সেইসুত্র ধরেই ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম (আইসিআইজে) কর্তৃক প্রকাশিত প্যারাডাইস পেপারস কেলেংকারি বিষয়ক দুর্নীতির জন্যে তুরস্কের সাংবাদিক ও আইসিআইজের অন্যতম সদস্যÑ পেলিন উনকার এক দুর্নীতি বিষয়ক রিপোর্ট ও লেখা প্রকাশের জন্য ঐ দেশের আদালত তথাকথিত মানহানি ও ঘৃন্য বিচারের মাধ্যমে তের বৎসরের জেল আদেশ দিয়েছে। এ সম্পর্কে পেলিন উনকার আইসিআইজেকে এক সাক্ষাৎকারে বলেনÑআমি এ ধরনের অস্বাভাবিক রায়ের আদেশে আশ্চর্য হয়নি। এ রায়ের বিরুদ্ধে অ্যাপিল করতে আগ্রহী। তিনি আরো বলেনÑ প্যারাডাইস পেপারস সংক্রান্ত দুর্নীতিতে আদালতের এ ধরনের আদেশে উল্লেখ করার মতো বিষয় যেÑ এ রায়ই পৃথিবীতে প্রথম আমার বিরুদ্ধে মানহানি ও ঘৃন্য রায় দিয়েছে। ঐ রায়ের পরপরই আইসিআইজের ডিরেক্টর গেরার্ড রাঈল বলেনÑ এ ধরণের রায়ে জেল আদেশ প্যারাডাইস পেপারস সংক্রান্ত অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার সত্যকে অস্বীকার করা হয়েছে এবং এতে এক ধরণের ভীতিকর প্রভাব পড়বে। তুরস্কে সাংবাদিকতা করা এখন অপরাধ হিসেবে পরিগণিত হয়েছে। ঐ পেশার লোকজন তাদের পেশাগত দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে একেবারে দুর্বিষহ অবস্থার মধ্যে সময় কাটাচ্ছে। এদিকে তুরস্কের সরকার ও রাষ্ট্র প্রধান তাঁর দেশের গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধক অবস্থা সম্পর্কে পুরোপুরি নিশ্চুপ। তাঁরা ভাবেনÑসাংবাদিকতা করা অপরাধ ছাড়া আর কিছুই নয়। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের একমাত্র পথ বৈশি^ক সাংবাদিক ও সাংবাদিক সংগঠনের সাথে সংশ্লিষ্ট লোকজনকে তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ে সোচ্চার হওয়াই সময়ের দাবি।

লেখকদ্বয়:
খন্দকার মাসুদ-উজ-জামান
চেয়ারম্যান
গ্লোবাল জার্নালিস্টস কাউন্সিল ইন বাংলাদেশ

মোহাম্মদ মিজানুর রহমান
মহাসচিব
গ্লোবাল জার্নালিস্টস কাউন্সিল ইন বাংলাদেশ

LEAVE A REPLY