সীমান্ত হত্যা নিয়ে বাংলাদেশের সরকার এবং বিবেকবানদের নির্বাক থাকা সন্দেহজনক ও হতাশাব্যঞ্জক

0
73

বিশেষ প্রতিনিধি: ভারতীয় বিএসএফ এ দেশের ভেতর ঢুকে সীমান্তে বাংলাদেশী হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমনের প্রতিবাদ

সীমান্ত আগ্রাসন এবং সার্বভৌমত্ব লংঘনের বিরুদ্ধে সকল দেশপ্রেমিক জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান – নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ শামসুদ্দীন

বাংলাদেশী যুবক শাহা আলম ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলায় নিজ জমিতে বোরো ধানের চারা রোপণ করতে যান। এ সময় ভারতীয় বিএসএফ দুপুরে বাংলাদেশ অভ্যন্তরে প্রবেশ করে শাহা আলমকে ধরে তারকাঁটার কাছে নিয়ে বেধড়ক মারপিট করতে থাকলে শাহা আলম জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তখন তাকে মৃত ভেবে বিএসএফ সদস্যরা চলে যায়। সাতক্ষরিার তলইগাছী সীমান্তে কৃষক নজরুলকে একই ভাবে বাংলাদেশ অভ্যন্তরে প্রবেশ করে নিজ স্ত্রীর সামনে নির্মম ভাবে হত্যা করেছিল ভারতীয় বিএসএফ।
এ ন্যাক্কারজনক সীমান্ত আগ্রাসনের এবং সার্বভৌমত্ব লংঘনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ শামসুদ্দীন।
তিনি বলেন, সার্বভৌমত্বের লংঘন এবং গুলির ঘটনার প্রকৃত পরিসংখ্যান খুবই উদ্বেগজনক। ২০০০-২০২০সাল পর্যন্ত ২০ বছরে পৌনে দুই হাজারের অধিক বাংলাদেশের নাগরিক সীমান্তে হত্যার ধারাবাহিকতায় এই হামলা। যা খুবই নিন্দনীয় ও দুঃখজনক।
সীমান্ত হত্যা নিয়ে বাংলাদেশের সরকার এবং বিবেকবানদের নির্বাক থাকা সন্দেহজনক ও হতাশাব্যঞ্জক। বারবার সীমান্ত হত্যা, সার্বভৌমত্বের লংঘন আমার স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্বকে অবহেলার সামিল। জাতি রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে ভারত শ্রদ্ধা ও সম্মান করে না।
বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় জাতীয় ঐক্য সৃষ্টিতে ব্যর্থ হলে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন হয়ে যাবে। তিনি বলেন সীমান্ত হত্যা বন্ধ হবে না যদি ফেলানী হত্যার বিচার না হয়।

LEAVE A REPLY