স্ত্রী ও বাড়িওয়ালা দম্পতিকে কুপিয়ে হত্যা

0
14

তারা নিউজ ডেস্ক:

নরসিংদীর শিবপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীকে হত্যার পর ঠেকাতে আসা বাড়িওয়ালা ও তার স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন বাদল মিয়া নামে এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দু’জন।

রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার পুটিয়া ইউনিয়নের কুমরাদি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর বাদল মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহতরা হলেন বাদল মিয়ার স্ত্রী নাজমা আক্তার (৪৫),বাড়িওয়ালা তাজুল ইসলাম (৬০) ও তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৫০)।

আহতরা হলেন-বাদল মিয়া ও নাজমা দম্পতির ছেলে সোহাগ (১৫) এবং বাড়িওয়ালার মেয়ে কুলসুম (২৩)।

পুলিশ জানায়, পারিবারিক কলহের জের ধরে বাদল মিয়ার সঙ্গে তার স্ত্রী নাজমা বেগমের মনমালিন্য চলছিল। এনিয়ে প্রায়ই তাদের ঝগড়া হতো। এর জের ধরে রোববার ভোরে নাজমার ঘর থেকে হইচই শুনে বাড়িওয়ালা তাজুল ও তার স্ত্রী মনোয়ারাসহ আশপাশের লোকজন এগিয়ে যান। এসময় তারা বাদলকে থামানোর চেষ্টা করলে তিনি আরও ক্ষিপ্ত হয়ে নাজমা ছাড়াও বাড়িওয়ালাসহ উপস্থিত লোকজনকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। এতে নাজমা ও তাদের ছেলে সোহাদ এবং বাড়িওয়ালা দম্পতি ও তাদের মেয়ে আহত হন। একপর্যায়ে আহত সোহাগ তার বাবার মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করলে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এ অবস্থায় তাকে বেঁধে রেখে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিলে নাজমা ও মনোয়ারাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাজুলকে ঢাকায় নেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু পরে পথেই তিনি মারা যান। আহত দু’জনকে ওই সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ঘটনার পর পরই ঘাতক বাদলকে আটক করে পুলিশ।

শিবপুর থনার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) আবুল কালাম বলেন, পারিবারিক কলহের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এর পেছরে আর কোনো কারণ রয়েছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তবে এখনো কোনো পক্ষ থেকে কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ করেননি।

LEAVE A REPLY